Intercourse | স্ত্রী সহবাসের ইসলামিক নিয়ম, দোয়া, আগে ওপরে করণীয়

স্ত্রী সহবাসের নিয়ম | সহবাসের আগে ও পরে করণীয় | সহবাসের উত্তম সময়

Intercourse | স্ত্রী সহবাসের নিয়ম

নিয়ত করাঃ- নিয়ত মানে হচ্ছে ইচ্ছা পোষণ করা। আরবিতে বলা জরুরি নয়। মনে মনে নিয়ত করলেই হবে।

Intercourse

আরো পড়ুন ,…..

WIFE CHEATING ON HUSBAND | ইসলাম কি বলে ?

এক স্ত্রী দুই স্বামী হারাম কেন ?

KALEMA | কালেমাঃ বাংলা উচ্চারণ, অর্থ, আরবি ও অডিও সহ

BOOKS / ইসলামিক বই PDF : ISLAMIC BOOK PDF BANGLA

SEX VIDEO | পর্ণগ্রাফি দেখার ফলে গোসল ফরজ হয় কিনা

Download Official Android Apps

painful intercourse সহবাসের সময় আদর-সোহাগ করা


ইসলামে সহবাসের সময় স্বামী-স্ত্রী একে অপরকে আদর করার কথা বলা হয়েছে। হাদিসে এই আদর সোহাগের ব্যাপারে উৎসাহিত করা হয়েছে। যৌন মিলনকে মধুর করতে যত উপায় আছে যেকোনভাবে তা করা যাবে। Intercourse

স্বামী চুম্বন, আলিঙ্গন, মর্দন ইত্যাদির মাধ্যমে স্ত্রীকে আদর করবে। তেমনি স্ত্রীও স্বামীকে আদর-সোহাগ করবে। এক্ষেত্রে উভয়ের বা সাড়া দেওয়া খুবই জরুরী। একে অপরকে মিলনের জন্য আগ্রহী করে তুলবে।

দাম্পত্য জীবনে থাকা খুবই প্রয়োজন। এতে করে সম্পর্ক গভীর হয়। অন্যথায় শয়তান খারাপ পথে নিয়ে যায় যা ডিভোর্সের কারণ হতে পারে।

সহবাসের শুরু করার সময় দোয়া পড়া

بِسْمِ اللّهِ اللّهُمَّ جَنِّبْنَا الشَّيْطَانَ وَ جَنِّبِ الشَّيْطَانَ مَا رَزَقْتَنَا

‘আল্লাহর নামে শুরু করছি, হে আল্লাহ! আমাদেরকে তুমি শয়তান থেকে দূরে রাখ এবং আমাদেরকে তুমি যা দান করবে (মিলনের ফলে যে সন্তান দান করবে) তা থেকে শয়তানকে দূরে রাখ।’

Intercourse রাসূলুল্লাহ ﷺ বলেছেন, এরপরে যদি তাদের দু’জনের মাঝে কিছু ফল দেয়া হয় অথবা বাচ্চা পয়দা হয়, তাকে শয়তান কখনো ক্ষতি করতে পারবে না। (বুখারী ৪৭৮৭)

anal intercourse | ইসলামে সহ*বাসের পজিশনঃ

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেছেনঃ-

نِسَآؤُکُمۡ حَرۡثٌ لَّکُمۡ ۪ فَاۡتُوۡا حَرۡثَکُمۡ اَنّٰی شِئۡتُمۡ ۫ وَ قَدِّمُوۡا لِاَنۡفُسِکُمۡ ؕ وَ اتَّقُوا اللّٰہَ وَ اعۡلَمُوۡۤا اَنَّکُمۡ مُّلٰقُوۡہُ ؕ وَ بَشِّرِ الۡمُؤۡمِنِیۡنَ

অর্থ- তোমাদের স্ত্রী তোমাদের ফসলক্ষেত্র। সুতরাং তোমরা তোমাদের ফসলক্ষেত্রে গমন কর, যেভাবে চাও। আর তোমরা নিজদের কল্যাণে উত্তম কাজ সামনে পাঠাও।

আর আল্লাহর তাকওয়া অবলম্বন কর এবং জেনে রাখ, নিশ্চয় তোমরা তাঁর সাথে সাক্ষাৎ করবে । আর মুমিনদেরকে সুসংবাদ দাও।(সূরা বাক্বারা-২২৩)

সহবাসের পদ্ধতি সম্পর্কে সরাসরি কোন বিধি নিষেধ নেই। দাঁড়িয়ে, বসে, শুয়ে, কাত হয়ে, সামনে থেকে, পিছন থেকে যেভাবে ইচ্ছা সেভাবে সহবাস করা যাবে। তবে শর্ত হচ্ছে তা যৌ*নিপথে করতে হবে।

first time intercourse | সহবাসের সময় দোয়া করা

بِسْمِ اللّهِ اللّهُمَّ جَنِّبْنَا الشَّيْطَانَ وَ جَنِّبِ الشَّيْطَانَ مَا رَزَقْتَنَا

উচ্চারণ : ‘বিসমিল্লাহি আল্লাহুম্মা জান্নিবনাশ শায়ত্বানা ওয়া জান্নিবিশ শায়ত্বানা মা রাযাক্বতানা।

’অর্থ : ‘হে আল্লাহ! তোমার নামে (যৌন মিলন বা সহবাস) আরম্ভ করছি, তুমি আমাদের (স্বামী-স্ত্রী উভয়ের) কাছ থেকে শয়তানকে দূরে রাখ। আমাদের এ মিলনের ফলে যে সন্তান দান করবেন, সে সন্তানকেও শয়তান (যাবতীয় আক্রমণ) থেকে দূরে রাখ।’

যেভাবে সহবাস করা হারামঃ-

ইসলামে স্ত্রীর সাথে পায়ুপথে সহবাস করা হারাম করেছে। হাদিসে আছে, ‘যে ব্যক্তি মলদ্বারে সঙ্গম করে আল্লাহ তার দিকে দয়ার দৃষ্টিতে তাকান না।’

পায়ুপথ বা মলদ্বারে সহবাস করে ফেললে গোনাহগার হবে। এইজন্যে তওবা করতে হবে। এছাড়াও পায়ুপথে সহবাস করলে রোগ ব্যাধি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

Intercourse meaning and examples | ইসলামে সহবাসের নিষিদ্ধ সময়


এমন কিছু সময় আছে যখন সহবাস করা হারাম। এই নিষিদ্ধ সময় সহবাস করলে গোনাহগার হবেন। ইসলাম এই সময়গুলোতে নিজেদেরকে সহবাস থেকে বিরত রাখার কথা বলেছে।

কেউ যদি সঙ্গম করে ফেলে তার জন্য তওবা করতে হবে এবং কাফফারা আদায় করতে হবে।

১. স্ত্রীর মাসিকের সময়
স্ত্রী যখন ঋতুবতী অবস্থায় থাকে তখন যৌন মিলন করা যাবে না। Intercourse

২. রোজা থাকা অবস্থায়

রোজা থাকা অবস্থায় সহবাস করা হারাম। তবে রমজান মাসে রাত্রি বেলায় সহবাস করা যাবে। দিনের বেলায় সহবাস করা নিষিদ্ধ। ইচ্ছাকৃতভাবে কেউ সঙ্গম করে ফেললে তাওবা করতে হবে এবং কাযা, কাফফারা আদায় করতে হবে।

এছাড়াও যে সময় সহবাস করা নিষিদ্ধ। তাহলোঃ

ইত্তেকাফের সময়,
হজ্জের ইহরাম বাঁধা অবস্থায়,
স্ত্রীর গর্ভপাতের ৪০ দিন সময় পর্যন্ত
উপরোক্ত সময়গুলো ছাড়া অন্যযেকোন সময় যৌন মিলন করা যাবে।

এক্ষেত্রে পূর্ণিমা, আমাবস্যা, দিনের বেলা, শুক্রবার, ঈদের দিনে, ঈদের রাতে, শবে বরাতে, শবে কদরের রাতে ইত্যাদি সময় সহবাস করা যাবে এবং তা বৈধ বা হালাল। এতে কোনো ক্ষতি বা গোনাহ হবে না।

স্ত্রীর মিল*নের আগে স্বামীর কিছু কর্তব্য থাকে যা আপনার সহবাসকে আরো তৃপ্তি দিতে পারে। সেরকমই বিষয় তুলে ধরা হলো-

1। কোন প্রকার বল প্রয়োগ করা আদৌ বাঞ্ছনীয় নয়। একথা মনে রাখতে হবে।

2। চুম্বন, আলিঙ্গন, নিপীড়ন ইত্যাদি নানাভাবে স্ত্রীর মনে পূর্ণ কামাব জাগিয়ে তারপর তার সঙ্গে স*হবাসে রত হওয়া প্রতিটি পুরুষের কর্তব্য।

3। নারী ধীরে ধীরে আত্মসমর্পণ না করা পর্যন্ত তার সঙ্গে কখনও সহবাসে লিপ্ত হওয়া উচিত নয়।

4। নারী কখনও নিজের যৌ*ন উত্তেজনাকে মুখে প্রকাশ করে না। তবে সেটা অনেকটা লক্ষণ দেখে বুঝে নিতে হয়।

5। নারীর কর্তৃব্য সর্বদা পতির প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালবাসার ভাব ফুটিয়ে তোলা।

6। নারীর কর্তৃব্য স্বামীর চুম্বন, দংশন ও আলিঙ্গনের প্রতিউত্তর দেওয়া।

Intercourse meaning | সহ*বাসের পরে যা করনীয়

১। সহ*বাসের পর দু’জনের কিছুক্ষণ পরস্পর সংলগ্ন হ’য়ে অবস্থান করবে। এতে মানসিক তৃপ্তি হয়। ধীরে ধীরে দেহ শীতল হয়। এতে প্রেম দীর্ঘস্থায়ী হ’য়ে থাকে।

২। তারপর অবশ্য প্রত্যেকেই নিজ নিজ যৌ*নাঙ্গ ভালভাবে ধৌত করবে-এটি অবশ্য পালনীয়। তবে কিছুক্ষণ পর।

৩। অনেক শাস্ত্রে দুজনের ্লান করা বিধান আছে তবে তা সকলে পালন করে না।

৪। শর্করা মিশ্রিত এক গ্লাস জল কিঞ্চিৎ লেবুর রস বা দধি কিংবা শুধু ঠাণ্ডা জল কিছু খেতে হবে। এতে শরীরের মঙ্গল করে।

৫। প্রয়োজন হলে কোন পেটেন্ট ঔষধ সেবন করা যাইতে পারে।

৬। সহ*বাসের পর ঘুম একান্ত আবশ্যক-তদাই শেষ রাতে সহবাস বাঞ্ছনীয় নয়।

Human Intercourse | সহবাসের উত্তম সময় স্ত্রী সহবাসের উপযুক্ত সময়

স্ত্রী সহ*বাসের উপযুক্ত সময় শেষ রাত্রি । যেহেতু শেষ রাত্রে ভুক্ত খাদ্য ভাল রূপ হজম হওয়া পর শরীর যখন ঠিক হয়,

তখন যদি অন্তঃকরণের সরলতা ও পবিত্রতা রক্ষা করিয়া একাগ্র মনে স্বামী -স্ত্রী মিলন হয়, তাহা হইলেই অধিকতর তৃপ্তি লাভ করিতে পারে।

সেই রাত্রের সহবাসে স্বাস্হ্যবান সন্তানের জম্ম হয়। প্রমান পাওয়া যায়, শেষ রাত্রের সহবাসের সন্তান ধার্মিক, সাধু ও আওলিয়া- দরবেশ হইয়াছে।

স্বামী-স্ত্রীর জন্য কখন, কোন সময়ে সহবাস করা উচিত সে বিষয়ে জানা থাকা দরকার। অবশ্য যৌনবিদদের কথায় অনেকেরই অমিল পাওয়া যায়।

কেউ বলেন রাতের শেষ ভাগে সহবাস আনন্দদায়ক। আবার কেউ বলেন, রাতের প্রথম ভাগে সহবাস করা তৃপ্তিদায়ক।

তবে এই কথা সকলের মনে রাখা উচিত যে, ভরা পেটে স্ত্রী সহবাস করা ঠিক নয়। তাতে রোগ-ব্যাধির সম্ভাবনা থাকে।

খাওয়ার পরে অন্তর দুই ঘন্টার ভিতরে সহবাস করা ঠিক হবে না। স্ত্রীলোকের ঋতুস্রাব হতে পাক পবিত্র হওয়ার পরে ১৪/১৫ দিন পর্যন্ত সহ*বাসের প্রবল বাসনা থাকে। ঐ সময়ের সহবাসে গর্ভ সঞ্চার হয়ে থাকে।

বেশীরভাগ লোকের ধারণা, শেষ রাতে নারীদের কাম-বাসনা প্রবল থাকে এবং ঐ সময়ের সহবাসে স্বামী-স্ত্রী বেশী আনন্দ ও তৃপ্তি পেয়ে থাকে। দিনের বেলা সহবাস না করে রাতে সহবাস করা উচিত।

যেহেতু রাতের অন্ধকারে মনের মতো সাধ মিটাতে পারা যায় এবং ঐ সময়ের সহবাসে প্রায়ই ছেলে সন্তান জম্মে থাকে।

Man sexing woman | স্ত্রীর স্তন মুখে নেওয়া যাবে কি?


উত্তরঃ-জায়েয, তবে স্ত্রীর স্তনে যদি দুধ থাকে তাহলে স্বামীকে সর্তক থাকতে হবে, যেন দুধ মুখে না আসে।

যদি দুধ মুখে আসার আশঙ্কা থাকে সে ক্ষেত্রে চোষন থেকে বিরত থাকা উচিত। Man sexing woman

স্বামী স্ত্রী সহবাসের ১২টি সুন্নতি পদ্ধতি জেনে নিন